মঙ্গলবার,২৮,মে,২০২৪
29 C
Dhaka
মঙ্গলবার, মে ২৮, ২০২৪
Homeসীমানা পেরিয়েমধ্যপ্রাচ্যে শান্তি কতদূর?

মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি কতদূর?

নতুন কথা প্রতিবেদন ॥ ইসরাইলের ভয়বাহ বিমান হামলায় ধ্বংসস্তুুপে পরিণত হয়েছে ফিলিস্তিনের গাজা। হামলা থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাসপাতালও রেহাই পাচ্ছে না। গত এক সপ্তাহের হামলায় কয়েক হাজার নিরীহ ফিলিস্তিন নারী-পুরুষ-শিশু নিহত হয়েছে। বাস্তচ্যুত হয়েছে অন্তত সাড়ে চার লাখ। ইসরাইলের এই হামলা বিগত ৭৫ বছরের মধ্যে তীব্র ও বিধ্বংসী। ৭ অক্টোবর মাতৃভূমি পুনরুদ্ধারে স্বাধীনতাকামী ফিলিস্তিনের সশস্ত্র গোষ্ঠী হামাসের অতর্কিত ও নজিরবিহীন হামলার জবাবে ইসরাইল হামলা পরিচালনা করছে। শুধু হামলা নয়, গোটা গাজা অবরুদ্ধ করে রেখেছে কয়েক লাখ ইসরাইলি সেনা। পানি, গ্যাস, বিদ্যুৎ লাইন কেটে দেওয়া হয়েছে। সব মিলে গাজায় এখন মানবিক বিপর্যয় নেমে এসেছে। তবে হামাসও ইসরাইলি হামলার জবাব দিয়ে চলেছে।
যুদ্ধে উভয় পক্ষের মৃতের সংখ্যা আড়াই হাজারের বেশি অতিক্রম করতে চলেছে। এর মধ্যে ১২ শতাধিক ইসরাইলি। ৭ অক্টোবরের হামলাতেই মূলত: তারা নিহত হন। ওই হামলার পরই ইসরাইল পাগলের মতো আচরণ করছে। ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু ঘোষণা করেছেন, ‘এই যুদ্ধ পশ্চিম এশিয়ার মানচিত্রকে পাল্টে দেবে।’
মানচিত্র কার কতটুকু বদলাবে সেটা এখন বোঝা না গেলেও বুঝতে বাকি থাকছে না যে ইসরাইল ও ফিলিস্তিনের দীর্ঘ সংঘাতের সমাধানের কোনো পথ নেই। বলতে গেলে খোলা আছে দুটি পথ-বিশ্ব থেকে ইসরাইলি মানচিত্র মুছে ফেলা, যেটা ইরান বলছে। তবে এই পথ সংঘাতের, রক্তক্ষয়ের। এই পথ এক অসম যুদ্ধের। পরাক্রমশালী ইসরাইলের বিরুদ্ধে নিরীহ ফিলিস্তিন নাগরিকদের। আরেক পথ এই অঞ্চলের সাধারণ মানুষের মধ্যে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান সৃষ্টি করা।
৭ অক্টোবর হামাসের হামলা ইসরাইলের ক্ষয়ক্ষতি তো ঘটিয়েছেই, তার সঙ্গে বিরাট মানসিক ধাক্কাও দিয়েছে। এ কারণেই ভয়ানক পাল্টা হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরাইল। যার মূল্য দিচ্ছে সাধারণ মানুষ।
ফিলিস্তিনের নিজের ঘরে বিভাজন এবং বিদ্বেষের অন্ত নেই। নিজভূমে পরবাসী ফিলিস্তিনি জনগণের স্বদেশের আকাক্সক্ষা সক্রিয় হলেও গোষ্ঠী-নেতাদের লড়াইয়ের কারণে সেটা কখনো সেভাবে গতিবেগ পায় না। ফিলিস্তিনের বর্তমান প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আব্বাসের নেতৃত্বাধীন আল-ফাতাহ এবং ইরান সমর্থিত আল-হামাসের পারস্পরিক অবিশ্বাস এবং হানাহানির কথা সবার জানা। মাহমুদ আব্বাসও ভালো করে জানেন হামাসের সঙ্গে বেশি মাখামাখি করলে তাদের জন্য দেওয়া মার্কিন-ইউরোপীয় অনুদান বন্ধ হয়ে যেতে পারে যেকোনো সময়।
প্রায় ২১ বছর আগে আরব শান্তি উদ্যোগ নামে সক্রিয় হয়েছিল সৌদি আরব। এর উদ্দেশ্য ছিল ১৯৬৭ সালের আগের সীমান্ত ফিরিয়ে এনে ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে শান্তি স্থাপন করা। সেই উদ্যোগ সফল হয় নি। তবে সৌদি আরব এখনো মনে করে এটি সম্ভব, যদি দুই পক্ষের মধ্যে শুভবুদ্ধি জাগে।
এগুলো সবই রাজনৈতিক উদ্যোগ। আলোচনার টেবিলে এসব ওঠে, আবার হারিয়ে যায়। ফিলিস্তিনিদের প্রতি ইসরাইলের নিষ্ঠুরতা ও নির্মমতার বিষয়টি খুব কম আলোচনাতেই উঠছে। ইসরাইলের নাগরিক সমাজে ফিলিস্তিনিদের আলাদা রাষ্ট্রের কথা আলোচিত হলেও ইসরায়েলের শাসকরা সে পথটি চিন্তাও করে না। তাদের মধ্যে কাজ করে হিংসা ও বিদ্বেষ।
হামাস কেন এত বড় হামলা করলো বা করতে পারলো সেটা এখন বড় আলোচনা। ইসরায়েলের গুপ্তচর বিভাগ বিশ্বের অন্যতম সেরা হিসাবে খ্যাত। তাদের দৃষ্টি এড়িয়ে কীভাবে সম্ভব হলো, এটি যেমন আলোচনা তেমনি আলোচনা কেন করলো তা নিয়ে। গাজা এবং অন্যত্র জনসমর্থন আদায় করতে এবং পশ্চিম এশিয়ায় নিজেদের গুরুত্বকে আরো জোরালো করতে হামাস এই হামলা করেছে, যদিও তারা ভালো করেই জানে এমন হামলা ইসরাইলকে আরো সহিংস করে তুলবে এবং দেশটি অধিকৃত অঞ্চলের নীতিতেও কোনো পরিবর্তন আনবে না। ২১ বছর আগে সৌদি আরবের শান্তি উদ্যোগ কিছুটা নতুনভাবে গতি পায় বাইডেন প্রশাসনের কারণে। আমেরিকার মধ্যস্থতায় ইসরাইল এবং সৌদি আরবের মধ্যে স্বাভাবিক সম্পর্ক তৈরির সম্ভাবনাকে ব্যাহত করা হামাসের আরেকটি বড় লক্ষ্য।
সৌদি আরবকে আধুনিক, উদার, ব্যবসা ও পর্যটনবান্ধব করতে চান ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। নিজ দেশে মেয়েদের ব্যাপারে উদারতা দেখানোসহ সামাজিক বিভিন্ন সংস্কারের পাশাপাশি সৌদি আরব পররাষ্ট্রনীতিতে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আনার চেষ্টাও করছে। সেই চেষ্টায় আছে ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করা। ইহুদি রাষ্ট্রটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে সৌদি আরব স্বীকৃতি দেয়নি ঠিক, তবে নানাভাবে তাদের সঙ্গে সম্পর্ক বৃদ্ধির প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।
এর পাশাপাশি সৌদি আরবের পররাষ্ট্রনীতির বড় উদ্দেশ্য ফিলিস্তিন সমস্যার একটি শান্তিপূর্ণ সমাধান। সেটি আর আপাতত এগোবে বলে প্রতীয়মান হচ্ছে না। বলতে গেলে বিরাট ক্ষতিই হলো। ইসরাইল এবং সৌদি আরবের মধ্যে সম্পর্কের সূত্রে পশ্চিম তীরে স্বাভাবিক অবস্থা আসার সুযোগ তৈরি হয়েছিল, সেটি হাতছাড়া হলো। একটা কথা তো ঠিক যে রক্তক্ষয়ী সংঘাত শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের সমাধান হতে পারে না। পূর্ব জেরুজালেমকে রাজধানী করে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র চায় সৌদি আরবও। তবে সেটা শান্তিপূর্ণভাবে।
হামাস আগে হামলা করেছে এ কথা সত্যি। তবে বল ইসরাইলের কোর্টেই। দীর্ঘদিন ধরে ফিলিস্তিনিদের জমি, ভূমি দখল করে রাখার মাধ্যমে, নিষ্ঠুরতা জারির মাধ্যমে নিজেদের জন্যও অশান্তির পরিবেশ তৈরি করছে কিনা সেই বিবেচনা বোধ ইসরাইলের না এলে শান্তি সুদূর পরাহত। হাত আছে আমেরিকারও। যদি কারণে অকারণে ইসরাইলের পাশেই থাকে যুক্তরাষ্ট্র তবে তার নিজের যুদ্ধ অর্থনীতি চাঙা হবে ঠিকই, তবে সেটা হবে রক্তের ওপর দিয়ে হেঁটে।

সর্বশেষ