24 C
Dhaka
সোমবার, মার্চ ১, ২০২১

অনলাইন টিভি

Bangladesh
546,216
কোভিড-১৯ সর্বমোট আক্রান্ত
Updated on March 1, 2021 2:31 AM
Home গণ অর্থনীতি উত্তাল পৃথিবীঃ বাংলাদেশের সংকট ও সম্ভাবনা

উত্তাল পৃথিবীঃ বাংলাদেশের সংকট ও সম্ভাবনা

।। ড. নিখিল দেব ।।

Dr. Nikhil Deb
ড. নিখিল দেব

পুঁজিবাদী বিশ্বে সঙ্কট কোনও নতুন বিষয় নয়। পুঁজিবাদী একদিকে প্রগতিশীল এবং অন্যদিকে শোষণমূলক। সঙ্কট, তাই, অনিবার্য। এর শোষণমূলক বৈশিষ্ট্য সুপরিচিত; ব্যাখ্যা দরকার নেই। আমি প্রগতিশীল বলতে কী বোঝাতে চাই? কার্ল মার্কস, শম্পিটার ও এমনকি অমর্ত্য সেনের বিশ্লেষণে আমরা লক্ষ্য করেছি যে পুঁজিবাদ যেকোনও পূর্ববর্তী সিস্টেমগুলির চাইতে প্রগতিশীল। অন্তত কথায় হলে, এটি স্বাধীনতার ধারণাকে গুরুত্ব দেয়, এবং নিওলিবারেলিজম— পুঁজিবাদের একটি সমসাময়িক ফর্ম— স্বাধীনতাকে গুরুত্ব দিয়েই আলোতে এসেছে (যদিও এটা বাজারের স্বাধীনতা)। আমরা জানি যে নিওলিবারেলিজম ধনীদের জন্য অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার একটি প্রকল্পও । তবে আমি কেন এটির প্রগতিশীল দিকটি বলছিলাম? বাংলাদেশের পোশাক শিল্পের বিষয়টি বিবেচনা করুন।বাংলাদেশের পোশাক শিল্প কয়েক মিলিয়ন নারী কর্মী নিয়োগ করেছে, যারা পূর্বে কেবলমাত্র গৃহস্থালি কাজে নিযুক্ত ছিল। যদিও পুঁজিবাদ তার সম্প্রসারণের স্বার্থে এটি করেছিল, তবু কে এটা অস্বীকার করবে যে ঘরোয়া কাজের ভার নারীদের পূর্ণ সম্ভাবনা উপলব্ধি করতে বাধা দেয়? পোশাক শিল্প নারীকে গৃহস্থালি কাজ থেকে মোটামুটি মুক্তি দিয়েছে। যাই হোক । মূল পয়েন্টে আসা যাকঃ পুঁজিবাদের সংকট । পুঁজিবাদ কীভাবে বারবার সংকটের মুখোমুখি হয় তা বুঝতে আমাদের ইতিহাসবিদ হওয়ার দরকার নেই ।

সাম্প্রতিক,পুঁজিবাদের বড় বিপর্যয় একটি তথাকথিত অস্বাভাবিক ব্যক্তির উত্থানের মধ্যে প্রতিফলিতঃ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫ তম রাষ্ট্রপতি ডোনাল্ড জে ট্রাম্প। ব্রেক্সিটও ইউরোপীয় বিশ্বে অনুরূপ বার্তা প্রেরণ করেছে। কেবল তাই কি? ভারতের বর্তমানে ডানপন্থী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রয়েছেন; মোদি ও ট্রাম্পের একই কৌশল ও আদর্শ ব্যবহার করে ব্রাজিলে বলসোনারো ক্ষমতায় উঠেছিলেন। তুরস্কে এরদোগান। এই জাতীয় জনপ্রিয় রাজনীতিবিদদের উত্থান সবই হ’ল পুঁজিবাদ সঙ্কটের লক্ষণ। সুতরাং, পুজিঁবাদ আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসার উপায় খুঁজে বের করেছে। ট্রাম্প পুনরায় নির্বাচিত হননি; প্রকৃতপক্ষে, সমস্ত উদার ও ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলি এই অস্বাভাবিক দানব থেকে পুঁজিবাদকে বাঁচাতে একত্রিত হয়েছিল। ট্রাম্পের পরাজয় তাই উদার পুঁজিবাদের জয়!

তবে এই জয় চলমান সংকটকে— অর্থনৈতিক, পরিবেশগত, রাজনৈতিক— আড়াল করতে পারে না। তারও বিশদ ব্যাখা দেয়া প্রয়োজন বলে মনে করি না। জাতিসংঘের আন্তঃসরকারী সংস্থা আইপিসিসি (Intergovernmental Panel on Climate Change) ২০১৮ সালে ঘোষণা করেছিল যে জলবায়ুর প্রভাব থেকে পৃথিবীকে বাঁচানোর আমাদের সুযোগ দিন দিন সংকীর্ণ হচ্ছে । এই জাতীয় পরিবেশগত হুমকি পুঁজিবাদেরই ফলাফল ।

বিশৃঙ্খল এই পৃথিবীতে বাংলাদেশ ভূ-রাজনৈতিকভাবে বাহ্যিক বিশ্বের কাছে কম গুরুত্বপূর্ণ। এর ভাল ও খারাপ দিক রয়েছে। আমি এই সংক্ষিপ্ত অংশে ভাল দিকে মনোনিবেশ করব। তবে আামার প্রোপোজাল অনেকের খারাপ লাগতে পারে। আর সেটা হলো বাংলাদেশের উচিত পুঁজিবাদের বিকাশের দিকে মনোযোগ দেয়া। তবে পুঁজিবাদের বিকাশ হবে না গণতন্ত্রের অগ্রগতি ছাড়া । আমরা বলতে পারি না যে বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুরোপুরি কার্যকর । আসলে, শক্তিশালী বিরোধী দল ছাড়া গণতন্ত্র হয় না; বাংলাদেশে তা নেই। বাংলাদেশে গণতন্ত্র এখনও তার নবজাতক পর্যায়ে রয়েছে।এটি অদ্ভুত লাগতে পারে, তবে যেখান থেকে লেখা শুরু করেছিলামঃ পুঁজিবাদের প্রগতিশীল দিক। বাংলাদেশের মতো মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে—যেখানে ধর্মীয় অনুভূতিগুলি জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রগুলিতে আধিপত্য বিস্তার করে— পুজিঁবাদের বিকাশের মাধ্যমে সামাজিক ও ধর্মীয় সংস্কারগুলোকে ইহজাগতিক রূপ দিতে হবে। দেশে ব্যাপক আকারে প্রসার ঘটাতে হবে উদার শিক্ষার । আমি কেন এগুলো বলছি? শুধুমাত্র অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি দেশকে বাঁচাতে পারবে না। সামাজিক এবং ধর্মীয় অসুস্থতাগুলি আক্রমণে ফিরে আসবে । যেমন এসেছিল বারবার । তবে সুবিধাবঞ্চিত ধার্মিক লোকদের অবশ্যই মূল স্রোতে আনতে হবে, আর এটি কেবলমাত্র শিক্ষা এবং সামাজিক আন্দোলনের মাধ্যমেই সম্ভব ।

বাংলাদেশে গণতন্ত্র এখনও খুব দুর্বল । আমাদের একটি শক্তিশালী গণতন্ত্রের ভিত্তি তৈরি করা দরকার । গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলি শক্তিশালী করতে হবে। মানে হল আমাদের একসাথে একাধিক জিনিস করতে হবে। এবং গণতন্ত্রের ভিত্তি শক্ত হওয়ার পরে আমাদের অবশ্যই একটি সমতাবাদী সমাজের দিকে যাত্রা শুরু করতে হবে। মোটকথা, বাংলাদেশকে অবশ্যই প্রথমে গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলিকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি পুঁজিবাদ বিকাশের দিকে মনোযোগ হবে। ধর্মীয় ও সামাজিক অসুস্থতাগুলিকে বাজারের যুক্তির আওতায় আনতে হবে ধর্মনিরপেক্ষ সমাজ প্রতিষ্টার লক্ষ্যে। অন্যথায় কিছুতেই টিকবে না। এটি একটি কঠিন কাজ, তবে অসম্ভব নয়।

লেখক: সহকারী অধ্যাপক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, মারে স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। প্রাক্তন সহকারী অধ্যাপক, সমাজবিজ্ঞান বিভাগ, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। উন্নয়ন, পরিবেশ, প্রতিরোধ, সমাজতত্ত্ব ও গ্লোবাল সাউথ সম্পর্কিত তাঁর প্রকাশনাগুলি আন্তর্জাতিক জার্নাল ও সম্পাদিত বইয়ে ছাপা হয়েছে।

(নিবন্ধে প্রকাশিত অভিমত লেখকের একান্তই নিজস্ব ও ব্যক্তিগত। এটি সম্পাদকীয় নীতিমালার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নাও হতে পারে- সম্পাদক)

সর্বশেষ

সর্বশেষ মন্তব্য