29 C
Dhaka
শনিবার, মে ১৫, ২০২১

অনলাইন টিভি

Bangladesh
779,535
কোভিড-১৯ সর্বমোট আক্রান্ত
Updated on May 15, 2021 4:51 AM
Homeজাতীয়রাজশাহী সদর হাসপাতালকে কোভিড হাসপাতাল ঘোষণার দাবি

রাজশাহী সদর হাসপাতালকে কোভিড হাসপাতাল ঘোষণার দাবি

রাজশাহী থেকে জগদীশ রবিদাস: প্রায় দুই দশক ধরে বন্ধ আছে রাজশাহী সদর হাসপাতাল। একটা সময়ে এই হাসপাতালটিই ছিল এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষের চিকিৎসা সেবার একমাত্র শেষ ঠিকানা। বর্তমানে রাজশাহীতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ভয়াবহ পরিস্থিতি যেন স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে হাসপাতালটির প্রয়োজনীয়তার কথা। তাই জনগণের স্বার্থে শহরের পুরনো এই হাসপাতালটিকে কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা করার দাবি তুলেছে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগর কমিটি।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) বিকেলে রাজশাহী মহানগর ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু ও সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবুর স্বাক্ষরিত একটি যুক্ত বিবৃতিতে এই দাবি জানানো হয়।

বিবৃতিতে ‘বিকল্প’ কোভিড হাসাপাতালের প্রাসঙ্গিকতা তুলে ধরে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘রাজশাহীতে করোনা সংক্রমণ যেভাবে ছড়িয়েছে; তা খুব সহজে নিয়ন্ত্রণ করা অত্যন্ত কঠিন। কোভিডের এমন দুঃসময়ে বিভাগের সবক’টি জেলা থেকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সাধারণ মানুষ চিকিৎসা নিতে আসছেন। রোগীর সংখ্যা বাড়ায় হাসপাতালেও তৈরি হচ্ছে প্রচ- চাপ। এ চাপ সামাল দিতে এখনই হিমশিম খাচ্ছে মেডিক্যাল কতৃপক্ষ। এমন পরিস্থিতে আমরা যদি স্বাস্থ্যসেবার জন্য ‘বিকল্প’ চিন্তা না করে শুধুমাত্র রামেক হাসপাতালের ওপর ভর করি; তবে তা আগামীর বিপদকে ত্বরান্বিত করা ছাড়া কিছুই নয়।’

বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে তাদের জায়গা ও জনবল বিবেচনায় সাধারণ রোগীদের জন্যই বেশিরভাগ চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে হচ্ছে। এর পাশাপাশি তারা করোনার চিকিৎসা চালাচ্ছেন। একটি হাসপাতালে সাধারণ রোগী ও করোনা রোগীকে একসাথে রেখে দীর্ঘদিন চিকিৎসা করানো আশঙ্কাজনক। এতে সাধারণ ওয়ার্ডেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা আছে। সুতরাং এমন নাজুক পরিস্থিতিতে রাজশাহীকে বাঁচাতে হলে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য আলাদা হাসপাতালের ব্যবস্থা করা অত্যন্ত জরুরি। সেক্ষেত্রে রাজশাহী সদর হাসপাতাল একদম যথাযথ।’

সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় এ দাবি দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়ে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘আগামীর ভয়াবহতা থেকে বাঁচতে হলে এই সিদ্ধান্ত দ্রুত গ্রহণের কোন বিকল্প নেই। সিদ্ধান্তে কালক্ষেপণের খেসারত বর্তমানে পার্শ্ববর্তী অনেক দেশকে দিতে হচ্ছে। আমরা মনে করি, রাজশাহী সদর হাসপাতালকে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য ব্যবহার করলে স্বাস্থ্য সংক্রান্ত বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণ করা সহজ হবে।’ বিবৃতিতে এ দাবি বাস্তবায়ন না হলে জনগণকে নিয়ে রাস্তায় আন্দোলনেরও হুশিয়ারি দেন ওয়ার্কার্স পার্টির নেতারা।

সর্বশেষ

×

আমাদের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ